দর্শকপ্রিয় অভিনেতা নির্মাতা সালাউদ্দিন লাভলুর জন্মদিন আজ

দর্শকপ্রিয় অভিনেতা নির্মাতা সালাউদ্দিন লাভলুর জন্মদিন আজ

মিডিয়া পাড়া ২৪ :দর্শকপ্রিয় অভিনেতা,নাটক ও চলচ্চিত্র নির্মাতা সালাউদ্দিন লাভলুর জন্মদিন আজ। তিনি ১৯৬০ সালের ২৪ জানুয়ারি কুষ্টিয়ায় জন্মগ্রহণ করেন। জেলার জুগিয়া গ্রামে এই সাংস্কৃতিক ব্যক্তির জন্ম। বাবা মোঃ সদর উদ্দিন পেশায় একজন সরকারি কর্মকর্তা ছিলেন এবং মা রোকেয়া খাতুন ছিলেন স্কুল শিক্ষিকা। বলতে গেলে এক প্রকার নাটক পাগল মানুষ তিনি।

বাংলাদেশী অভিনেতা, চিত্রনাট্যকার এবং টিভি পরিচালক। তার কাজ সাধারণত টেলিভিশন চলচ্চিত্র এবং টেলিফিল্মের সমন্বয়। তার পরিচালনায় সাধারণত হাস্যরসাত্মক এবং এসন সাধারণত বাংলাদেশী শ্রোতাদের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয়। তার উল্লেখযোগ্য কাজগুলোর মধ্যে ব্যস্ত ডাক্তার (২০০৪),গরুচোর (২০০৭),ঢোলের বাদ্য (২০০৮) এবং ওয়ারেন (২০০৯) এবং উল্লেখযোগ্য সিরিয়াল নাটক গুলোর মধ্যে, রঙের মানুষ (২০০৪),ভবের হাট (২০০৭),ঘর কুটুম (২০০৮),আলতা সুন্দরী (২০০৯) এবং সাকিন সারিসুরি (২০০৯) হার কিপ্টা (২০০৮) অন্যতম।
শুভ জন্মদিন সালাউদ্দিন লাভলু
সালাউদ্দিন লাভলুর বেড়ে উঠা বাংলাদেশের বর্তমান খুলনা বিভাগের অন্তর্গত কুষ্টিয়া জেলার জুগিয়া গ্রামে। ১৯৭৯ সালে লাভলু বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকায় চলে আসেন এবং আরণ্যক নাট্যদলে থিয়েটারে যোগদান করেন। এখানে তিনি ১৯৮৫ সাল পর্যন্ত মঞ্চ নাটকে অভিনয় করেন যদিও তার ইচ্ছা ছিল অন্য কিছু করার।

বাংলাদেশ টেলিভিশনের (বিটিভি) নিজস্ব প্রোডাকশনে কাজ শুরু হওয়ার পর, তিনি বেশ কিছু ধারাবাহিক নাটকে অভিনয় করেন কিন্তু তিনি সুখ্যাতি অর্জন করতে পারেন নি। ১৯৯০ এর প্রথম দিকে, তিনি কাজ শুরু করেনে নাটক এডিরিং তারপর চিত্রগ্রাহক হিসেবে কাজ শুরু করেন। ১৯৯৭ সালে, ছয় বছর ধরে চিত্রগ্রাহকের কাজ করার পর, তিনি পরিচালক হিসেবে নিজেকে খুজে পাওয়ার লক্ষ্য দেখতে পান।

১৯৯৭ সাল থেকে ২০০৪ সালের মধ্যে, লাভলু আট থেকে নয়টি টেলিভিশন চলচ্চিত্র পরিচালনা করেন। এর মধ্যে দ্বিচক্রযান (১৯৯৭),গহরগাছি (১৯৯৭),একজন আয়নাল লস্কর (১৯৯৯),আধুলী (২০০২) এবং ঘর (২০০২) তার এই কাজগুলো সমালোচকদের প্রশংসা অর্জন এবং কিছু চলচ্চিত্র বিভিন্ন পুরস্কার জয়লাভ করে। ২০০৪ সাল থেকে, লাভলু অনেক ধরনের ধারাবাহিক টেলিভিশন নাটকে পরিচালনা এবং অভিনয় করেছেন। রঙের মানুষ (২০০৪) তার পরিচালিত প্রথম ধারাবাহিক। এই নাটকের সফলতার পর, তিনি আরো কিছু ধারাবাহিক নাটক নির্মাণ করেন। তারপর থেকে তিনি টেলিভিশন ধারাবাহিক পরিচালনা এবং অভিনয় করে আসছেন। এর মধ্যে অন্যতম দুইটি হল, ভবের হাট (২০০৭) এবং ঘর কুটুম (২০০৮)। উভয় ধারাবাহিকেই অভিনয় করেছেন চঞ্চল চৌধুরী এবং মোশাররফ করিম।

ধারাবাহিক নাটকের মধ্যে তিনি অনেক গুলো টেলিভিশন নাটক অভিনয় এবং পরিচালনা করেন। যেমন, গরুচোর (২০০৭),পত্র মিতালী (২০০৭),স্বপ্নের বিলাত (২০০৭),ঢোলের বাদ্য (২০০৮),পাত্রী চাই (২০০৯) এবং ওয়ারেন (২০০৯)। তিনি এই নাটকগুলোতে সফলতা এবং পরিচিতি লাভ করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *